বিদ্যুৎ ব্যাবস্থায় আন্ত:সংযোগ, কমিয়ে আনে দুর্ভোগ. (বিদ্যুৎ ব্যাবস্থাপনায় গ্রীড সিস্টেম) / Grid in Power System

বিদ্যুৎ ব্যাবস্থায় আন্ত:সংযোগকমিয়ে আনে দুর্ভোগ.
(বিদ্যুৎ ব্যাবস্থাপনায় গ্রীড সিস্টেম)

বিদ্যুৎ ব্যাবস্থা মুলত তিনটি ধাপে বিভক্ত

উৎপাদন
পরিবহন
বিতরন

C:\Users\Nahid\AppData\Local\Microsoft\Windows\INetCache\Content.Word\5f115-page-0.jpg

এই তিনটি ধাপ যথাযথভাবে সম্পন্ন হলে একটি দেশের আধুনিক বিদ্যুতায়ন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়।

বিদ্যুৎ উৎপাদনে রয়েছে বাংলাদেশে বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন পাওয়ার প্লান্ট।
যেমন আশুগঞ্জ পাওয়ার প্লান্ট,ঘোড়াশাল পাওয়ার প্লান্টকাপ্তাই পাওয়ার প্লান্টইত্যাদি।
যাইহোক পাওয়ার প্লান্ট এর তালিকা নিয়ে অন্য কোনদিন আলোচনা করব।

দেশের বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত এই সব পাওয়ার প্লান্টে
উৎপাদিত বিদ্যুৎ স্থানীয় ভাবে ব্যবহৃত হয়না। বরং বিভিন্ন পাওয়ার প্লান্টে উৎপাদিত পাওয়ার একটি গ্রীডে এসে যুক্ত হয়।
অত:পর এই পাওয়ার পরিবহন করে নিয়ে যাওয়া হয় দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে লোড সেন্টারগুলোর কাছাকাছি। পরিবহনের এই কাজটি করে থাকে পাওয়ার গ্রীড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেড
পরিবহনকৃত এই বিদ্যুৎ শক্তি বিভিন্ন বিতরন প্রতিষ্ঠানের কাছে বন্টন করা হয়।

বন্টনের কাজটি অর্থাৎ কোন বিতরন প্রতিষ্ঠান কতটুকু পাওয়ার নিবে তা নির্ধারন করে ন্যাশনাল লোড ডেসপাস সেন্টার বা NLDC.

বন্টনকৃত বিদ্যুৎ শক্তি বিতরন প্রতিষ্ঠান গ্রহন করে গ্রাহক পর্যায়ে বিতরন করে থাকে।
বিতরন প্রতিষ্ঠান যেমন পল্লীবিদ্যুৎ সমিতিঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী ইত্যাদি।
এই হচ্ছে একটি পুর্ণাঙ্গ পাওয়ার সিস্টেম।

বিস্তারিত জানার জন্য তুমি তিনভাগে জানার চেষ্টা করবে। উৎপাদন কেন্দ্রপরিবহন প্রতিষ্ঠানএবং বিতরন প্রতিষ্ঠান। 
আজ আমি শুধু সামগ্রিক ধারনা দিয়ে যাচ্ছিজানার আগ্রহ তৈরি হলে আমার পরবর্তী ব্লগটি মনযোগ দিয়ে পড়বে।

তোমাদের মনে এই মুহুর্তে নিশ্চয়ই প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।উৎপাদিত বিদ্যুৎ স্থানীয় ভাবে ব্যবহার না করে গ্রীডে কেন যুক্ত করা হচ্ছে। 
গ্রীড আবার কি?

তোমাদের মনে প্রশ্নউদাহরনস্বরুপ ময়মনসিংহে উৎপাদিত পাওয়ার ময়মনসিংহে ব্যবহার করে নিলেই হয়। এটাকে গ্রীডে যুক্ত করে সারাবাংলাদেশে পরিবহন করে বেড়ানোর কি আছে?

C:\Users\Nahid\AppData\Local\Microsoft\Windows\INetCache\Content.Word\bigstock-129608-1024x593.jpg

একটা মজার উদাহরন দেই তোমাদের বুঝতে সুবিধা হবে।

ধরো মোবারক হোসেন নামে এক ব্যাক্তি যার  ছেলে বাংলাদেশের সাত জেলায় বাস করে মোবারক হোসেন থাকেন ঢাকায়।

 ছেলের  টি সংসার (স্ত্রী সন্তাননিয়ে দিনযাপন করছে।  ছেলে যা আয় করে তা দিয়ে তাদের নিজ নিজ পরিবারের খরচ বহন করে।
কিন্তু ৭টি পরিবারের আয় কিন্তু সমান নয়। খরচও সমান নয়। কোন পরিবারে সন্তানের সংখ্যা বেশী। আবার কোন পরিবারে সন্তানদের শিক্ষা খরচ বেশী।
যার কারনে  টি পরিবারের কোন পরিবারে আয় বেশী খরচ কমআবার কোন পরিবারে খরচ বেশী আয় কম। আয় এবং ব্যয়  অসামঞ্জস্য তৈরি হচ্ছে।
এছাড়া হঠাৎ করে কোন পরিবারের আয়কর্তা অসুস্থ থাকলে তার আয় বন্ধ থাকে ফলে তার পরিবারে অচলাবস্থা তৈরি হবে।

মোবারক সাহেব  ছেলেকে ডেকে বললেন তোমরা তোমাদের আয়ের টাকা আমার কাছে জমা দিবে তোমাদের মা তোমাদের পরিবারের চাহিদা বিবেচনা করে সুষম বন্টন করে আবার তোমাদের স্ত্রীদের কাছে পাঠিয়ে দিবে। তোমাদের স্ত্রীরা সেই টাকা দিয়ে সংসারের খরচ বহন করবে। দেখবে যৌথ পরিবার হওয়ায় তোমাদের অভাব এবং চাহিদা পুরন সুষম ভাবে হবেভাল থাকবে তোমাদের পরিবার।

এখানে  ছেলে হচ্ছে উৎপাদন কেন্দ্র, বউ হচ্ছে বিতরন প্রতিষ্ঠানমোবারক সাহেব হচ্ছেন গ্রীড সিস্টেম মোবারক সাহেবের স্ত্রী হচ্ছেন NLDC, ছেলের সন্তানেরা হলো গ্রাহক।

বিদ্যুৎ ব্যবস্থায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রতিষ্ঠান কতৃক উৎপাদিত বিদ্যুৎ শক্তিকে একটি গ্রীডের আওতায় নিয়ে আসা হয়। গ্রীড কোম্পানি এই বিদ্যুৎ শক্তি পূনরায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পরিবহন করে বিতরন প্রতিষ্ঠানের কাছে বন্টন করে দেয়। বিতরন প্রতিষ্ঠান গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুৎ বিতরন করে থাকে। 
C:\Users\Nahid\AppData\Local\Microsoft\Windows\INetCache\Content.Word\power-grid.jpg
গ্রীড সিস্টেম হওয়ায় সারা দেশের বিদ্যুৎ চাহিদা এবং বিদ্যুৎ উৎপাদন এর মাঝে সম্ন্বয় সাধন করে গ্রাহকদের বিদ্যুতায়নের জন্য সুষম লোড বন্টন সম্ভব হয়।
গ্রীড সিস্টেম হওয়ায় যে অঞ্চলে কোন পাওয়ার প্লান্ট নেই সেই অঞ্চলও বিদ্যুতের সুবিধার আওতায় চলে আসে। যে অঞ্চলে উৎপাদন কম চাহিদা বেশী সেখানেও বিদ্যুতের চাহিদা পুরন হয়।
যে অঞ্চলে উৎপাদন বেশী চাহিদা কমসেখানের বিদ্যুৎ শক্তি অন্যত্র গ্রীডের মাধ্যমে শেয়ারিং হয়। 
যা একটি দেশকে চমৎকার বিদ্যুৎ ব্যবস্থা উপহার দেয়।

গ্রীড সিস্টেম না হলে অর্থাৎ স্থানীয়ভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং স্থানীয়ভাবেই ব্যবহার হলে হটাৎ কোনদিন পাওয়ার প্লান্ট বন্ধ থাকলে বা নষ্ট হলে বা উৎপাদন ক্ষমতা হ্রাস পেলে ওই এলাকা মারাত্মক বিদ্যুৎ বিভ্রাটে পরে সমগ্র অঞ্চলের মিল কারখানা বন্ধ হয়ে অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়ে যেত।
ইন্টারকানেক্টড সিস্টেমের গুরুত্বপূর্ণ একটি সুবিধা হচ্ছে লোড বিনিময় করা যায়  যখন গ্রাহকদের বেশি চাহিদা হয় তখন ইন্টারকানেক্টড সিস্টেমের মাধ্যমে অন্য কোন বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র থেকে বৈদ্যুতিক শক্তি সরবরাহ করা যায়  ইন্টারকানেক্টড মানেই হচ্ছে কয়েকটা উৎপাদন কেন্দ্র এর সমন্বয়।
বিদ্যুৎ ব্যাবস্থায় আন্তঃসংযোগ কমিয়ে আনে দুর্ভোগ 

লেখক
নাহিদুল ইসলাম (নাহিদ)
বিভাগীয় প্রধান
ইলেকট্রিক্যাল টেকনোলজি
ড্যাফোডিল পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট

 

Comments

Sign in to comment